এই পর্বে আমি কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট সাধারণত সব প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজেই কমন একটা জিনিস। আর গুরুত্বপূর্ন তো অবশ্যই। তেমন ঝামেলাপূর্ন কোনো ব্যাপার না। একদম সিম্পল এবং আশা করি সবাই সহজেই শিখে ফেলতে পারবেন এটা

আমার জাভাস্ক্রিপ্ট ব্যাসিক এর লেখাগুলোঃ

আমরা রিয়েল লাইফে অনেক ডিসিশন নিয়ে থাকি। আমাকে আজকে এই কাজটা নাইলে ঐকাজটা বা দুইটাই করতে হবে। আজকে যদি শুক্রবার হয় তাহলে কোনো কাজ নাই, আর যদি সোমবার হয় তাহলে অফিস বা স্কুল/কলেজ/ভার্সিটি আছে। বা মার্কেটে কেনাকাটা করতে গেলে ডিসিশন নিতে হয়।

আমাদের প্রোগ্রামিং এর বেলাতেও মাঝেমধ্যে এরকম ডিসিশন নেওয়া লাগে। ধরুন আপনার একটা ওয়েবসাইট আছে, ঐটাতে ইউজাররা রেজিস্ট্রেশন করতে পারে। আবার রেজিস্ট্রেশন না করেও অনেকে ভিসিট করতে পারে যাদেরকে আমরা গেস্ট ইউজার বা ভিসিটর বলতে পারি। এখন যদি আপনার ওয়েবসাইটে সেই ইউজার রেজিস্ট্রেশন করে থাকে তাহলে আপনি তাকে একটা জিনিস দেখাবেন আর যদি রেজিস্ট্রেশন না করে থাকে তাহলে তাকে অন্য জিনিস দেখাবেন।

ফেসবুককেই উদাহরণ হিসাবে নিলে, আপনি রেজিস্ট্রেশন/লগিন না করলে একটা লগিন/সাইন-আপ পেজ দেখতে পাবেন। আর রেজিস্ট্রেশন করে লগিন করলে আবার অন্যরকম জিনিস দেখতে পারতেছেন। তো এগুলাই আসলে প্রোগ্রামিং এ ডিসিশন। আর এগুলাকেই কন্ট্রোল করা হয় কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট দিয়ে।

কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট সোজা বাংলায়

এখন রাত(সত্য হইলে):
   তাইলে ঘুমানোর টাইম
না এখন সকাল(সত্য হইলে):
   তাইলে ঘুম থেকে উঠার টাইম
না এখন বিকাল(সত্য হইলে):
   তাইলে ঘুরতে যেতে হবে
কোনোটাই সত্য না:
   তাইলে বসে থাকি

যাই হউক এবার আশা করি বুঝতে পারেছেন। তাহলে সোজা প্রোগ্রামের দিকে চলে যাই। জাভাস্ক্রিপ্ট এ কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট ৩ রকমের আছেঃ

১। if statement

২। if...else statement

৩। if...else if statement

আরো একটা আছে switch স্টেটমেন্ট নামে, সেটা নিয়েও এই পর্বে ডিসকাস করেছি শেষের দিকে।

এখন আসুন বিস্তারিত আলোচনায় যাই। তার আগে প্রথম দিকের পর্বে বানানো স্ক্রিপ্ট ফাইলটা ওপেন করুন। ওখানে আমরা প্র্যাক্টিস করবো। যদি ফাইল না থেকে থাকে তাইলে এখান থেকে নামিয়ে বা আপনি নিজেই একটা HTML ফাইল নিয়ে সাথে জাভাস্ক্রিপ্ট ফাইল একটা লিঙ্ক করিয়ে নিন। আর রেজাল্ট দেখার জন্যে index.htmlফাইল আপনার ব্রাউজারে(ক্রোম হলে ভালো হয়, যেহেতু এই লেখায় সব জায়গায় গুগুল ক্রোমই ইউজ করা হয়েছে) ওপেন করে কন্সোল বের করে দেখবেন।

কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট এর মেইন কাজ হলো যদি কোনো স্টেটমেন্ট সত্য হয় তাহলেই একমাত্র সেই কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট এর ভিতরে থাকা আপনার কোড/প্রোগ্রাম গুলো রান করবে। আর সত্য না হলে টোটালি ইগ্নোর করে যাবে।

১। if statement

if(সত্য কিছু হয়) {
   তাহলে আমার ভিতরের জিনিস এক্সিকিউট হবে
}

এটা হচ্ছে শুধু একটা কন্ডিশন চ্যাক করবে। যদি অমুক সত্য হয় তাইলেই আমার ভিতরে যা আছে তা দেখাবা নাইলে কিছু দেখানোর দরকার নাই

দুইটা নাম্বার কম্পেয়ার করে সত্য/মিথ্যা রেজাল্ট, এবং তার উপর ডিপেন্ড করে ভিতরের কন্সোল লগ প্রিন্ট হবে কি হবে না
৩ যেহেতু ৫ থেকে ছোটো তাই এক্সপ্রেশন সত্য এবং ভিতরের কন্সোল লগ প্রিন্ট হয়েছে

আরোঃ

একইভাবে স্ট্রিংও কম্পেয়ার করা হচ্ছে
যেহেতু স্ট্রিং দুইটা একই, তাই লেখা প্রিন্ট হয়েছে
এখানে এক্সপ্রেশন মিথ্যা
তাই কিছু প্রিন্ট হয়নি

আপনি এভাবে পর পর কয়েকবারও লিখতে পারেনঃ

এভাবেও করা যায়
যে যে এক্সপ্রেশনগুলো সত্য হয়েছে সেগুলার ভিতরের কন্সোল লগই প্রিন্ট হয়েছে

তবে কন্ডিশনগুলো যদি একটা সাবজেক্ট বা একটা কারণের উপরেই হয়ে থাকে তাহলে ৩ নাম্বারেরটা if...else ifইউজ করাই উত্তম।

আর আপনাকে অবশ্যই মনে রাখতে হবে। আপনি if (expression) এখানে এক্সপ্রেশনে যেটা দিবেন সেটা অবশ্যই সত্য true নাইলে মিথ্যা false রেজাল্ট দিতে হবে। কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট শুধু এখানে সত্য true বা মিথ্যা false অ্যাক্সেপ্ট করে, অন্যকিছু করে না। আগের পর্ব তে মনে আছে তো কিভাবে অপারেটরগুলো সত্য মিথ্যা রেজাল্ট দেখাতো? হ্যা ওগুলাই এখানে ইউজ করতে পারবেন ইচ্ছা মতো 🙂

এভাবেও অনেকগুলা এক্সপ্রেশন একসাথে দিতে পারবেন। মনে রাখবেন শেষ পর্যন্ত যদি সত্য হয় তাইলেই প্রিন্ট হবে নাইলে কখনো প্রিন্ট হবে না
এক্সপ্রেশন সত্য তাই প্রিন্ট হয়েছে

২। if...else statement

if(সত্য কিছু হয়) {
   তাহলে আমার ভিতরের জিনিস এক্সিকিউট হবে
} else {
   নাইলে আমার ভিতরের জিনিস এক্সিকিউট হবে
}

এটা হচ্ছে যদি if অমুক সত্য হয় তাইলে আমার ভিতরে যা আছে দেখাবা নাইলে else এগুলা দেখাবা। এটা আপনাকে আরো কন্ট্রোল এনে দিবে কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট এর উপরে। এখানে যদি সত্য হয় তাহলে if এর ভিতরের জিনিস এক্সিকিউট হবে। আর যদি মিথ্যা হয় তাহলে else এর ভিতরের জিনিস এক্সিকিউট হবে।

সত্য হলে এটা, আর মিথ্যা হলে ঐটা প্রিন্ট করবে
সত্য তাই প্রিন্ট হচ্ছে

৩। if...else if statement

if(সত্য কিছু হয়) {
   তাহলে আমার ভিতরের জিনিস এক্সিকিউট হবে
} else if(নইলে যদি আমি সত্য হই){
   তাহলে আমার ভিতরের জিনিস এক্সিকিউট হবে
} else if(নইলে যদি আমি সত্য হই){
   তাহলে আমার ভিতরের জিনিস এক্সিকিউট হবে
} 
...
else {
   নাইলে আমার ভিতরের জিনিস এক্সিকিউট হবে
}

মানে যতবার ইচ্ছা else if ইউজ করা যাবে

এটা হচ্ছে যদি অমুক সত্য হয় তাহলে আমার ভিতরে যা আছে দেখাবা নাইলে যদি অন্যকিছু সত্য হয় তাইলে এগুলা দেখাবা বা যদি কিছুই সত্য trueনা হয় তাহলে else আমার ভিতরের গুলা দেখাবা

এভাবে যতো ইচ্ছা else if ইউজ করতে পারবেন
যে এক্সপ্রেশন সত্য হয়েছে সেটার ভিতরেরটা প্রিন্ট হচ্ছে
সেইম ভাবে
যে এক্সপ্রেশন সত্য সেটাই প্রিন্ট হবে

এগুলাই কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট এর ব্যাসিক বলতে গেলে। কিন্তু এগুলাকে আপনি চাইলে আরো কমপ্লেক্স করেও লিখতে পারবেন।

***বাংলাদেশে শুক্রবার, শনিবার সাপ্তাহিক বন্ধের দিন, আর বৃহস্পতিবার হাফ ডে অনেক জায়গায়।

নেস্টিং কন্ডিশনাল স্টেট্মেন্টঃ

নেস্টিং মানে হচ্ছে একটা কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট এর ভিতরে আরেকটা কন্ডিশনাল স্টেটমেন্ট। এবং এটা সম্পূর্নরূপে বৈধ। আপনি যেভাবে ইচ্ছা শুধু if এর ভিতরেও else if…else বা else if ইউজ করতে পারবেন বা অন্যগুলার ভিতরেও শুধু if ইউজ করতে পারবেন এখানে ধরা বাধার কোনো নিয়ম নাই।

একটার ভিতরে আরেকটা, আরেকটার ভিতরে আরেকটা, এভাবে যতোবার ইচ্ছা করতে পারবেন
প্রিন্ট হচ্ছে
এভাবেও ইউজ করতে পারবেন, এখানে আপনার পরিপূর্ন স্বাধীনতা রয়েছে
প্রিন্ট হচ্ছে

আপনার টাস্কঃ

আপনার আজকে টাস্ক হলো ৩ টা নাম্বার থেকে বড় নাম্বার খুঁজে বের করবেন। এর জন্যে আপনার মাথায় যা আসে সেভাবেই করতে পারবেন। চেষ্টা করে দেখুন, না পারলে সমস্যা নাই তবে প্র্যাক্টিস করা জরুরী।

সুইচ স্টেটমেন্টঃ

এবার আসি switch স্টেটমেন্ট এ। আমরা শেষের যেটা ইউজ করলাম, if…else if ঐটা ইউজ করে সবসময় ফ্লেক্সিবল নাও হতে পারে। ধরুন আপনি একটা ভ্যালুর উপরেই ডিসিশন নিতে চাচ্ছেন। কেস যদি অমুক হয় তাইলে এটা প্রিন্ট করা হবে, আর কেস যদি তমুক হয় তাইলে ঐটা প্রিন্ট করা হবে।

সুইচ (এক্সপ্রেশন) {
   কেস যদি এটা(১) হয়ঃ 
      এখানের কোড এক্সিকিউট হবে;
      ব্যাস তারপর শেষ;
কেস যদি এটা(২) হয়ঃ 
      এখানের কোড এক্সিকিউট হবে;
      ব্যাস তারপর শেষ;
   ...
   
   কেস যদি এটা(.) হয়ঃ 
      এখানের কোড এক্সিকিউট হবে;
      ব্যাস তারপর শেষ;
   
   কেস যদি এটা হয়ঃ 
      এখানের কোড এক্সিকিউট হবে;
      ব্যাস তারপর শেষ;
   কেস যদি কোনোটাই না হয় তাইলে বাই ডিফল্টঃ
      এখানের কোড এক্সিকিউট হবে;
}

একটা উদাহরণ দিলে ক্লিয়ার হবেন। নিচের উদাহরণটা ভালো করে দেখুনঃ

বাহ! অনেক লম্বা কোড তো, কিন্তু সিম্পল

দেখুন, যদিও এই কাজের জন্যে সুইচ বেস্ট সলিউশন না কিন্তু আপনি আপনার মন মতো যেকোনো কিছু ইউজ করতে পারবেন। এখানে শেষে default লিখা হয়েছে। এটা যদি আপনি না লিখেন তাইলে যেই কেস এ আপনার ভ্যালু মিলবে সেখান থেকে একদম শেষ পর্যন্ত প্রিন্ট হবে। break; এটা দিয়ে বুঝানো হয় যে ব্যাস কাজ শেষ এবার থামো! আর সবশেষে দেখুন একটা ডিফল্ট কেস আছে। যদি কোনোটাই না মিলে তাইলে এইটা প্রিন্ট হবে।

যেই কেস মিলছে, সেটাই প্রিন্ট হচ্ছে

আরো কিছু উদাহরনঃ

এই ধরনের জিনিসের জন্যে সুইচ বেস্ট অপশন
প্রিন্ট হচ্ছে

তো বুঝতে পারছেন ক্ষেত্রবিশেষে এটাও অনেক কাজের হতে পারে। তবে আপনি চাইলে যেকোনো একটা ইউজ করতে পারবেন, এতে ধরাবাঁধা কোনো নিয়ম নেই। যেটা দিয়ে আপনার কাজ হবে সেটাই ইউজ করবেন।

আর ব্রেক break; শেষে অবশ্যই দিবেন, নাইলে আপনার কেস সবগুলাই প্রিন্ট হবে দেখবেন। তো যদি এরকম কিছু দেখেন তাহলে মেবি break; দিতে ভুলে গেছেন!


আর সর্বশেষে আরেকটা ব্যাপার, এতোগুলো পর্বে দেখে আসছেন আমি কোড একটু ফাঁকা ফাঁকা করে লিখতেছি কোথাও কোথাও। আসলে এই ফাঁকা জায়গাগুলো কোনো ব্যাপার না। আপনি এভাবেও কোড লিখতে পারবেনঃ

তবে var এর পড়ে স্পেসটা ইম্পরট্যান্ট নাইলে কম্পিউটার কিভাবে বুঝবে var ই লিখা হয়েছে নাকি অন্যকিছু (varmyAge)

কিন্তু আমরা এভাবে লিখি কারণ দেখতে সুন্দর দেখা যায়, আর আপনিই সহজেই কাজ করতে পারবেন। এরর আসলে ফিক্স করতে পারবেন। আর কোডের ফ্লো বুঝতে পারবেন যে কোথায় কোনটা শুরু হইছে আর কোথায় শেষ হইছে। ব্যাসিকেলি এই জন্যেই এভাবে ফাঁকা করে করে লেখা হয়। ফাঁকা গুলো স্পেস space কী দিয়েও করতে পারবেন, তবে ডেভেলপাররা ট্যাব tab কী ইউজ করে এজন্যে।

বাহ! অনেক সুন্দর দেখা যায় তো। আর হ্যা বুঝাও যাচ্ছে কি করা হচ্ছে এই কোডে

একটা রিকোয়েস্টঃ

একটু সময় নিয়ে নিচের ফর্মটা পূরণ করার জন্য আপনাকে রিকোয়েস্ট করছি। যাতে ভবিষ্যতে আমার কি করা উচিত, কি টার্গেট করে লেখা উচিত, কি টেকনোলজী নিয়ে লেখা উচিত এগুলা সব বুঝতে পারি তাই আপনার কাছ থেকে একটু সময় নিবো, কষ্ট করে এই ফর্ম টা পূরণ করে সাবমিট করবেন 🙂


আমার নতুন ব্লগ পোস্ট গুলোর আপডেট পেতে আপনি আপনার ইমেইল দিয়ে আমার ব্লগ পোস্টগুলো সাবস্ক্রাইব করে রাখতে পারেন, নতুন পোস্টগুলো সপ্তাহে একদিন আপনার ইনবক্সে চলে যাবে

Comments

comments