আমার সাথে

Personal Blog of Zonayed
বাংলা সফট স্কিল

এক পলকে গিট (Git) ও গিটহাব (GitHub) — পর্ব ২/৩

জুন 5, 2018

আগের পর্ব না দেখে থাকলে অবশ্যই সেখান থেকে পড়া শুরু করবেন। কারন এই লেখাটা আগের লেখার ধারাবাহিকতায় লেখা

আমি লিখা শেষ করার পর দেখলাম অনেক বড় হয়ে গেছে, তাই পুরোটাকে তিনটা পর্বে ভাগ করেছি।

গত পর্বে কিভাবে কমিট করবেন সেপর্যন্ত দেখিয়েছিলাম, এবার বাকী অংশে আরেকটু অ্যাডভান্স কাজ দেখাবো…

ফাইল মডিফাই করে আবার কমিট করাঃ

এখন আমার একটা ভার্শন তৈরী হয়ে গেলো। কিন্তু আমার প্রোজেক্টে আরো অনেক কাজ আছে। আমি চাচ্ছি friend-lists.txt ফাইলে সব ফ্রেন্ডদের ফোন নাম্বার সেইভ করে রাখতে। বর্তমানে ফাইলটা এরকম আছেঃ

Dibakar Sutradhar
S M Shahadat Hossain
Reduanul Houque Munna
Ar Rolin
Niraj Paudel
Tanvir Faisal Moon
Sagar Neupane
Yadav Lamechane

এখানে এই টেক্সট ফাইল এডিট করা আর কোনো কোড এডিট করা একই কথা। আমি টেক্সট ফাইলের সাহায্যে দেখাচ্ছি যাতে সবার বুঝতে সুবিধা হয়। এখন আমি সবার সাথে ফোন নাম্বার অ্যাড করবো।

Dibakar Sutradhar - +88018XXXXXXXX
S M Shahadat Hossain - +88018XXXXXXXX
Reduanul Houque Munna - +88018XXXXXXXX
Ar Rolin - +88018XXXXXXXX
Niraj Paudel - +9718XXXXXXXX
Tanvir Faisal Moon - +88018XXXXXXXX
Sagar Neupane - +9718XXXXXXXX
Yadav Lamechane - +9718XXXXXXXX

এখন টেক্সট এডিটর বা কোড এডিটর যেটাই ইউজ করে ফাইল মডিফাই করলাম সেটাতে সেইভ দিয়ে git status চ্যাক করলে দেখবেন ফাইল এটা মডিফাইড এবং আন-ট্র্যাকড দেখাচ্ছেঃ

git status

এখন এই আন-ট্র্যাকড ফাইলটাকে স্টেজিং এ নিয়ে ফাইনাল কমিট করে দিতে চাচ্ছি

git add --all

এবং ফাইনাল কমিটের জন্যেঃ

git commit -m "Contact Numbers Added"

পুনরায় মডিফাই করে কমিট করাঃ

এতোক্ষন ধরে হয়তো নিচের এই জিনিসটা লক্ষ্য করেছেন। master সাম্থিং…

আমার কমান্ড লাইনে কখনো লাল কখনো সাদা। লাল হয় যদি কোনো ফাইল ট্র্যাক না করা থাকে, আর সাদা হয় সবকিছু ট্র্যাক(কমিট) করা থাকলে। যাই হউক এই master হলো বর্তমান ব্রাঞ্চের নাম। অর্থাৎ বর্তমানে আপনি মাস্টার ব্রাঞ্চ বা বর্তমান ওয়ার্কিং ডিরেক্টরিতে আছেন। এটাই আপনার প্রোজেক্টের বর্তমান ভার্শন।

এখন আমাদের ডেভেলপমেন্ট এ অনেক সময় দেখা যায় পূর্বের ভার্শনে ফিরে যেতে হয়। একটা একটা করে ফিচার ডেভেলপড করার পর একটা সময় এসে কোনো প্রব্লেম দেখা দেয় যেটা পূর্বের কোনো ভার্শনে ঠিকঠাক কাজ করতো কিন্তু এখন সেটা কাজ করতেছে না। সেক্ষেত্রে গিট এ ট্র্যাক করা থাকলে আপনি সহজেই আপনার সেই ভার্শনে ফিরে যেতে পারবেন আর কোড চ্যাক করতে পারবেন, চাইলে আপনার প্রোজেক্ট রানও করতে পারবেন। ঠিক ঐসময় আপনার প্রোজেক্ট যেরকম ছিলো সেরকমটাই দেখবেন।

আমরা এখন ইচ্ছাকৃতভাবেই friend-lists.txt ভিতরে অ্যাড করা ফোন নাম্বারগুলো মুছে দিয়ে কমিট করবো আরেকটা। মুছে ফেলার পর ফাইলটা এরকম হবেঃ

Dibakar Sutradhar
S M Shahadat Hossain
Reduanul Houque Munna
Ar Rolin
Niraj Paudel
Tanvir Faisal Moon
Sagar Neupane
Yadav Lamechane

এখন এটা সেইভ করে স্টেজিং এ অ্যাড করে কমিট করে দিবোঃ

git add --all
git commit -m "Contact numbers removed"

কমিট লগ চ্যাক করাঃ

(আর্টিফিশিয়াল) হায় হায়! ফোন নাম্বার সব গেলো!!! কি হবে এখন? হ্যাঁ গিট দিয়ে তো ট্র্যাক করেই রেখেছি সব। কোন কমিটে জানি ফোন নাম্বারগুলো রেখেছিলাম? হ্যাঁ সেটা দেখতে চাচ্ছি। সব কমিটের লগ দেখতে চাইলেঃ

git log

এখানে তিনটা কমিট আছে। সাথে ডিটেইলস সহ, কমিটের ম্যাসেজ দেখে ইজিলিই বুঝতে পারবেন কোন কমিটে কি করা হয়েছিলো। আর সাথে কিছু এলোমেলো নাম্বার আছে। এগুলো ইউজ করে আমরা পূর্বের ভার্শনগুলোয় ফিরে যেতে পারবো।

এই লগ টা আরো সুন্দর করে কম্প্যাক ভার্শনে দেখতে চাইলে উপরের কমান্ডটা এভাবেও দেওয়া যাবেঃ

git log --oneline

এখানে সুন্দর করে ছোটো করে প্রয়োজনীয় সব দেখাচ্ছে। এখন এইখানের শর্টকাট এলোমেলো ইউনিক কমিট আইডিগুলোও শর্ট করে দেওয়া হয়েছে। এই শর্ট ভার্শনগুলোও ইউজ করে আগের কাঙ্ক্ষিত ভার্শনে যেতে পারবেন।

পূর্বের ভার্শনে ফিরে যাওয়াঃ

এখন আমরা যে কমিটে ফোন নাম্বার গুলো অ্যাড করেছিলাম সে কমিটে ফিরে যেতে চাচ্ছি। আমার এখানে সেই কমিটটা হলো এটাঃ

এখন এই ভার্শনে ফিরে যেতে চাইলে গিটের আরেকটা কমান্ড একভাবে ইউজ করতে হবে

git checkout 588418a

এখানে শেষেরটা হচ্ছে কমিট আইডি। আপনার আইডি ভিন্ন হবে। এখন এই কমান্ড রান করলে আপনার প্রোজেক্ট master ব্রাঞ্চ থেকে আগের এই কমিটের ভার্শনে ফিরে যাবে। তবে অবশ্যই মাস্টার ব্রাঞ্চে থাকাকালে সবকিছু আপনার ট্র্যাক করা থাকতে হবে। কোনো ফাইল/ফোল্ডার আন-ট্র্যাকড থাকলে বা আন-কমিটেড থাকলে আপনি চেক-আউট করতে পারবেন না। এখন কমান্ড লাইনে master এর জায়গায় কমিট আইডিটা দেখবেন। সাথে দেখবেন লেখা HEAD detached at আপনার কমিট আইডি।

এখন আপনার ফাইল চ্যাক করে দেখুন আগের সেই ভার্শনে ফিরে আসছে। friend-lists.txt তে সবার ফোন নাম্বারগুলো রয়েছেঃ

Dibakar Sutradhar - +88018XXXXXXXX
S M Shahadat Hossain - +88018XXXXXXXX
Reduanul Houque Munna - +88018XXXXXXXX
Ar Rolin - +88018XXXXXXXX
Niraj Paudel - +9718XXXXXXXX
Tanvir Faisal Moon - +88018XXXXXXXX
Sagar Neupane - +9718XXXXXXXX
Yadav Lamechane - +9718XXXXXXXX

এখন আপনার বর্তমান ওয়ার্কিং ডিরেক্টরি আগের একটা ভার্শনে রয়েছে। কিন্তু আপনি যদি মাস্টার ব্রাঞ্চে যেতে চান তাহলে আবার চেক-আউট দিতে হবে এভাবেঃ

git checkout master

ব্রাঞ্চ তৈরীঃ

আমি আগেই ব্রাঞ্চ(branch) এর কথা বলেছিলাম। তবে ব্রাঞ্চ কে আরো স্পেসেফিকলি বললেঃ- ব্রাঞ্চ আসলে আপনার করা কমিটগুলোই, কিন্তু সেই কমিটগুলোর একটা ইউনিক নাম থাকবে। আপনি সেই কমিটে চেক-আউট করতে চাইলে ব্রাঞ্চ এর নাম দিয়েই চেক-আউট করতে পারবেন। আগের সেই আশ্চর্য টাইপের কমিট আইডি লাগবে না।

আমি এখন আমার এই প্রোজেক্টে নতুন কিছু ট্রাই করতেচাচ্ছি। তবে আমি মেইন প্রোজেক্টে বা মাস্টার ব্রাঞ্চে সেটা এখনি আনতে চাচ্ছি না। বলতে পারেন আমি এখন এক্সপেরিমেন্টাল কিছু একটা করবো। তারপর ভালো লাগলে মাস্টার ব্রাঞ্চে নিয়ে আসবো।

এইজন্যে আমরা নতুন একটা ব্রাঞ্চ তৈরী করবো table-version নাম দিয়েঃ

git branch table-version

এখন আপনার এই table-version নামে একটা ব্রাঞ্চ তৈরী হয়ে যাবে। আপনি যে ব্রাঞ্চ থেকে এই নতুন ব্রাঞ্চ তৈরী করবেন, নতুন ব্রাঞ্চে সেই ভার্শনটাই থাকবে। আমার ক্ষেত্রে আমি master ব্রাঞ্চ থেকে table-version ব্রাঞ্চ তৈরী করেছি। আর তাই table-version এ আমার বর্তমানে master ব্রাঞ্চ এ থাকা প্রোজেক্টের ভার্শনটাই যাবে। মানে এখন master আর table-version এর প্রোজেক্ট পুরোপুরি সেইম।

আপনি চাইলে আপনার প্রোজেক্টে থাকা সবগুলা ব্রাঞ্চ এর লিস্ট ও দেখতে পারবেনঃ

git branch

ব্রাঞ্চ এ চেক-আউট করাঃ

আমরা ব্রাঞ্চ তৈরী করেছি, কিন্তু সেই ব্রাঞ্চ এ এখনো চেক-আউট করিনি। কোন ব্রাঞ্চ এ আছি তা আপনার কমান্ড লাইনে কারেন্ট ওয়ার্কিং ডিরেক্টরির পাশে দেখলেই বুঝবেন। আমরা আমাদের প্রোজেক্টে এখন master ব্রাঞ্চেই আছি।

এখন নতুন ক্রিয়েট করা ব্রাঞ্চে চেক-আউট করা ঠিক আগের অন্যকোনো কমিটে চেক-আউট করার মতোই। শুধুমাত্র এক্ষেত্রে আমরা ব্রাঞ্চ এর নাম দিয়েই চেক-আউট করতে পারবোঃ

git checkout table-version

এখন দেখবেন আপনার ব্রাঞ্চ table-version এ চলে গেছেঃ

এখানেও একটা ছোট্টো শর্টকাট টেকনিক আছে। আপনি যদি চান নতুন ব্রাঞ্চ তৈরী করে সাথে সাথে সেই ব্রাঞ্চে চেক-আউট করতে, সেটা একলাইনের কমান্ডেই করতে পারবেনঃ

git checkout -b table-version-new

দেখুন আমরা নতুন একটা ব্রাঞ্চ table-version-new নামে তৈরী করেছি এবং সাথে সাথে সেই ব্রাঞ্চে চেক-আউট করে ফেলেছি

যাই হউক এখন আমরা table-version এ কিছু মডিফাই করে তারপর সেগুলো মাস্টারে মার্জ করবো। তাই git checkout table-version দিয়ে আমরা আমাদের কাঙ্ক্ষিত ব্রাঞ্চে চলে যাবো। অবশ্যই কাজ করার সময় খেয়াল করবেন কোন ব্রাঞ্চে আছেন। কষ্ট করে কারেন্ট ওয়ার্কিং ডিরেক্টরির ডান পাশে দেখলেই পাবেন কোন ব্রাঞ্চে আছেন সেটা।

নতুন ব্রাঞ্চে মডিফিকেশনঃ

এখন আমরা আমাদের এই নতুন table-version ব্রাঞ্চে নতুন কিছু ট্রাই করবো। বর্তমানে আমাদের প্রোজেক্টের friend-lists.txt ফাইল এই অবস্থায় আছেঃ

Dibakar Sutradhar
S M Shahadat Hossain
Reduanul Houque Munna
Ar Rolin
Niraj Paudel
Tanvir Faisal Moon
Sagar Neupane
Yadav Lamechane

এখন আমরা এই নামগুলো একটা টেবিলের ভিতরে নিয়ে দেখি কেমন লাগেঃ

===========================
|| Dibakar Sutradhar     ||
===========================
|| S M Shahadat Hossain  ||
===========================
|| Reduanul Houque Munna ||
===========================
|| Ar Rolin              ||
===========================
|| Niraj Paudel          ||
===========================
|| Tanvir Faisal Moon    ||
===========================
|| Sagar Neupane         ||
===========================
|| Yadav Lamechane       ||
===========================

যাই হউক ধরে নিলাম আমার কাজের এই ভার্শনটা আমার ভালো লেগেছে, এখন আমি এটা মাস্টার ব্রাঞ্চে বা মেইন প্রোজেক্টে নিয়ে যেতে চাই। কিন্তু তার আগে আপনার এই পরিবর্তনগুলো বর্তমান ব্রাঞ্চে কমিট করতে হবে। কারন আপনি যতক্ষন না পর্যন্ত কোনো কিছু কমিট না করবেন, গিট সেগুলাকে কাউন্টই করবে না। কমিট করার জন্যেঃ

git add --all
git commit -m "Table added"

ব্যাস কমিট হয়ে গেলো আমার নতুন পরিবর্তনগুলো। এখন আমি এই table-version এ থাকা কাজগুলো মেইন master ব্রাঞ্চে নিতে চাচ্ছি। সেজন্যে প্রথমে master ব্রাঞ্চে চেক-আউট করতে হবেঃ

git checkout master

ব্রাঞ্চের নাম যেহেতু master ,তাই এটা লিখেই চেক-আউট করতে পারবেন। এখন খেয়াল করুন আপনার master ব্রাঞ্চে যাওয়ার পর আপনার প্রোজেক্টের সেই আগের ভার্শনটাই রয়ে গেছে। নতুন table-version এ করা কাজ এখানে আসে নাই। আপনি যদি table-version এ করা কাজ ফেলে দিতে চাইতেন, তাহলে জাস্ট master চেক-আউট করে চলে আসলেই হচ্ছে, কোথাও কোনো লেখা বা কোডে হাত দিতে হবেনা।

মনে করি নতুন ব্রাঞ্চে করা কাজ আমার ভালো লাগে নাই, বা এটা আমি রাখতে চাচ্ছি না। তাহলে জাস্ট সেই ব্রাঞ্চটাকে এভয়েড করে master এ চেক-আউট দিলেই চলবে বা চাইলে ব্রাঞ্চ ডিলেটও করে দিতে পারবেন। তবে আমরা table-version টা রাখবো। কিন্তু এর সাথে কিন্তু আমরা আরেকটা ব্রাঞ্চ তৈরী করেছিলাম table-version-new নামেঃ

ব্রাঞ্চ এর লিস্ট দেখতেঃ

git branch

আমরা table-version-new ব্রাঞ্চ ডিলেট করবো এখনঃ

git branch -D table-version-new

এখন এই ব্রাঞ্চ ডিলেট হয়ে যাবে, আর সেই সাথে ব্রাঞ্চে কোনো মডিফিকেশন থাকলে সেগুলোও ডিলেট হয়ে যাবে।

ব্রাঞ্চ মাস্টারে মার্জ করাঃ

এখন মাস্টারে চেক-আউট করার পরে দেখবেন মাস্টার আগের ভার্শনেই আছে। এখন আমরা table-version এ করা মডিফিকেশনগুলো মাস্টারে আনতে চাচ্ছি। সেটা একদম ইজি। মাস্টার ব্রাঞ্চে থাকা অবস্থায় এই কমান্ড দিলেই অটোম্যাটিক মার্জ হয়ে যাবেঃ

git merge table-version

সেই সাথে table-version এর কমিটটাও গিট অটোম্যাটিক অ্যাড করবে। গিট লগ দেখলে সেটাই দেখতে পাবেনঃ

git log --oneline

একটা কমিটের সাথে আরেকটা কমিটের পার্থক্য দেখাঃ

এখন আমরা যদি আমাদের বর্তমানের কমিটের সাথে আগের কমিটের পার্থক্য দেখতে চাই, কি কি কোড পরিবর্তন হয়েছে, কোথায় কোড অ্যাড করা হয়েছে, কোথায় ডিলেট করা হয়েছে, এগুলোও সব দেখতে পারবো গিটের কমান্ডের সাহায্যেঃ

ধরি আমরা Contact numbers removed আর Contact Numbers Added এই দুইটা কমিটের পার্থ্যক্যগুলো দেখতে চাচ্ছি। তাহলে এই দুইটারি কমিট আইডি লাগবে। কমিট আইডি গিট লগ দিয়ে ইজিলিই বের করতে পারবেন। এখানে git diff এর সাথে উক্ত দুইটা কমিটের আইডি পাস করতে হবে এভাবেঃ

git diff fad1051 588418a
আমি আসলে সবগুলো একসাথে কপি পেস্ট করেছিলাম, তাই সবগুলা লাইনই একবার রিমুভ আরেকবার অ্যাড দেখাচ্ছে, গিট এখানে অনেক স্মার্ট। গিট লাইন বাই লাইন, ক্যারেক্টার বাই ক্যারেক্টার দেখাবে। এখানে আসলে শুধুমাত্র ফোন নাম্বার গুলো অ্যাড করা হয়েছে এরকম দেখাবে।

এখানে উক্ত দুইটা কমিটে কোন ফাইলে এবং ঠিক কি কি রিমুভ(লালগুলো) এবং অ্যাড(সবুজগুলো) করা হয়েছে সেগুলো দেখানো হচ্ছে।

এখানে আরো লক্ষ্য করুন আমি git diff এর সাথে প্রথম আর্গুমেন্ট এ মোস্ট রিসেন্ট কমিট এবং পরেরটায় সেই কমিটের আগের কমিটের আইডি দিয়েছি। মানে প্রথম নতুনটা আর পরে পুরোনোটা দিয়েছে। এটার মানে হচ্ছে আমি প্রথমটার সাথে দ্বিতীয়টার পার্থ্যক্য দেখতে চাচ্ছি। এক্ষেত্রে দ্বিতীয়টা অর্থাৎ পুরোনোটার অনুসারে অ্যাডেড বা রিমুভড কোডগুলো দেখাবে। সেই সাথে কমিট আইডি প্রথমে পুরোনোটা এবং পরে নতুনটা দিলে ঠিক উল্টোটা দেখতে পাবেন। নতুনটার অনুসারে দেখাবে। কয়েকবার নিজে কমান্ড দিয়ে দেখলেই বুঝতে পারবেন।

এখন আমার প্রোজেক্ট আমি বাইরে সবার সাথে শেয়ার করতে চাই। এজন্যে আমাদের একটা হোস্ট প্রোভাইডার লাগবে, যে গিট ফ্রেন্ডলি এবং আমাকে গিটের সুবিধাগুলোসহ আমাকে ফ্রীতে হোস্ট প্রোভাইড করবে। হ্যাঁ এরকম একটা প্রোভাইডার হচ্ছে গিটহাব। আরো অনেক আছে, কিন্তু আজকে আমি গিটহাবেই কিভাবে কি করবেন সব দেখাবো। এখানে যেহেতু ইউজার ইন্টারফেস আছে, তাই আপনি পরে চাইলেও অন্য কোনো প্রোভাইডারের সার্ভিসও ইউজ করতে পারবেন। তবে গিটহাব অনেক পপুলার, কিন্তু তারপরেও কেন অন্য প্রোভাইডার লাগবে? সেটার কারন হচ্ছে গিটহাব ফ্রীতে প্রাইভেট রিপোজটরি করতে দেয় না। আপনি ফ্রীতে আনলিমিটেড রিপোজটরি করতে পারবেন। আপনার কোড যেকেউ চাইলে দেখতে পারবে। আর প্রাইভেট রিপোতে শুধুমাত্র সেই প্রোজেক্টের কন্ট্রিবিউটররাই দেখতে পারবে। তো এটাই গিটহাবের অনেক বড় অসুবিধা। এজন্যে অনেকে বিটবাকেট ও ইউজ করে, কারন বিটবাকেট স্মল টিমের জন্যে ফ্রীতে প্রাইভেট রিপোর অ্যাক্সেস দেয়। তাছারা গিটল্যাবও আছে অনেক ভালো লেভেলের। আর যদি আপনি স্টুডেন্ট হয়ে থাকেন কোন ইউনিভার্সিটির, এই সিরিজের শেষের দিকে গিটহাবে প্রাইভেট রিপোর অ্যাক্সেস ফ্রীতে কিভাবে নিবেন সেটার একটা অভিজ্ঞতা শেয়ার করবো।


এই পর্ব এই পর্যন্তই, পরের পর্ব দেখার আমন্ত্রণ রইলো। যদি বেশী হয়ে গেছে মনে করেন তাহলে এখানে ব্রেকও নিতে পারেন। আবার পরে পরের পর্বে জাম্প করতে পারবেনঃ


আমার নতুন ব্লগ পোস্ট গুলোর আপডেট পেতে আপনি আপনার ইমেইল দিয়ে আমার ব্লগ পোস্টগুলো সাবস্ক্রাইব করে রাখতে পারেন, নতুন পোস্টগুলো সপ্তাহে একদিন আপনার ইনবক্সে চলে যাবে

Comments

comments